A Brand Name ||Official Url :: Software UI Designer| Contents Designer | OS | W€B | Server | Programming | Computing Technology ::

ArT of My Voices ArTICLEs ::

Bangladesh and Recent Traffic System | বাংলাদেশ আর ট্রাফিক জ্যাম


১।

এমনই এক শহরে আমরা বাস করি, যেখানে প্রকৃতির সবুজ আর গাছের সবুজ পাতার দেখা পাওয়া দিন দিন কঠিন হয়ে যাচ্ছে।

প্রতিদিনের জ্যাম আর যানজটে আমরা চরম বিরক্ত, তারপরও আমরা নির্বাক নীরব জাতি। আর এমন বিরক্তিকর যানজট পার হয়ে বাসায় সুস্থভাবে আসতে পারাটা বড় সৌভাগ্যের বিষয়। কারন, বর্তমান সময়ে যে পরিমান যানজট হচ্ছে, তাতে যে কেউ অসুস্থ হয়ে যাওয়াটা স্বাভাবিক।
আবার, বলা হচ্ছে – ঢাকার এয়ারপোর্ট থেকে কমলাপুর পর্যন্ত আর উত্তরার দিয়াবাড়ি থেকে ঢাকার আগারগাঁও পর্যন্ত ১১ দশমিক ৭ কিলোমিটার জুড়ে পাতাল মেট্রোরেল নির্মিত হবে। তার মানে – আগামীতে ঢাকা বাসীকে আবার নতুন করে যানজটের সাথে হাত মিলেয়ে চলতে হবে।

এভাবেই, বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকাবাসীর সময় নষ্ট করছে, সাথে শ্রম, অর্থ ২ – ই ।

২।

বাংলাদেশ এমন একটা দেশ – যে দেশে বাসে চলন্ত অবস্থায় যাত্রী উঠানামা করানো হয়ে থাকে, তার উপর যত্রতত্র জায়গায় বাস থামিয়ে যাত্রী উঠানামা করানো হয়। আর বাস কোম্পানিগুলোর উপর সরকারের নাই কোন জবাবদিহিতা আর নিয়ন্ত্রন । আবার, নিয়ম নীতি না মেনে প্রধান সড়ক আর হইওয়ে রাস্তায় প্রতিযোগিতা মুলক ভাবে বাস চালায়, যার ফলে এই পর্যন্ত অনেক যাত্রী আর পথচারীর প্রান চলে গেছে ।

আবার সরকারের এক শ্রেণীর আমলা আর শ্রমিক সমিতির প্রধান নেতা এভাবে বেপোরায় গতিতে বাস চালানোর দায়ে যাত্রীর মৃত্যু ঘটলেও ফাঁসির বিধান না রাখার সুপারিশে আজকের বাংলাদেশে বাস সমিতি, বাস মালিক আর শেষে চালকরা প্রশ্রয়ে পেয়ে গেছে যত্রতত্র জায়গায় বাস থামিয়ে যাত্রী উঠানামা করানো, পাশাপাশি ঠাণ্ডা মাথায় পথচারী আর যাত্রী খুন করছে।

আর তারই ফল – আজকের নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সাইদুর রহমানের অকাল মৃত্যু । সাইদুর দৌড়ে এসে বাসে উঠতে গিয়ে নাকেমুখে আঘাত পান। রক্ত বের হতে থাকে। আহত যাত্রীকে চিকিৎসা দেওয়ার বদলে হানিফ এন্টারপ্রাইজের বাসটির চালক, সুপারভাইজার ও চালকের সহকারী মিলে একটি সেতু থেকে নদীতে ফেলে দেন।

আমরা জানি – এই হত্যার বিচার করতে পারবে না সরকার আর পুলিশ প্রশাসন। কারন আমাদের দেশের বাস মালিক কোম্পানিগুলো সরকার প্রধান আর পুলিশ থেকেও বেশি ক্ষমতাবান, তাদের অর্থের জোরও বেশি।

এমনকি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রানলয়ের প্রধানের ক্ষমতা নেই – এই বাস কোম্পানির বাসচালক, চালকের সহকারী ও সুপারভাইজারকে ফাঁসিতে ঝুলাতে।

৩।

এখন রাজনৈতিক বা অন্য প্রভাব খাটিয়ে ঢাকায় একটার পর একটা বাস কোম্পানি তৈরি হচ্ছে। বাসমালিকেরা আত্মীয়-পরিজন যাকে পাচ্ছে, তাকেই স্টিয়ারিংয়ে বসিয়ে দিচ্ছেন। এসব চালকের বেশির ভাগই নেশাগ্রস্ত। কেউ কেউ তো গাড়ি চলন্ত অবস্থায়ও গাঁজা খাচ্ছে।
— ঢাকা-রাজশাহী পথে ৩০ বছর ধরে দূরপাল্লার বাস চালক – জাহাঙ্গীর আলম

আর কত তাজা প্রান ঝরাতে পারলে বাস – মালিকদের আত্মা পরিশোধিত হবে। আর এক মন্ত্রনালয়ের প্রধান বলেছে – ভারতেও এ ধরণের দুর্ঘটনা হয় কিন্তু কেউ এ নিয়ে এতো উচ্চবাচ্য করেনা …..
বাংলাদেশ ভারতের পা চাঁটা গোলাম হয়ে গেছে । ভারত ছাড়া চলতে পারে না।

আমরা জানি – এই পর্যন্ত বাস চালদের দ্বারা এসব পরিকল্পিত হত্যার বিচার করতে পারবে না সরকার আর পুলিশ প্রশাসন। কারন আমাদের দেশের বাস মালিক কোম্পানিগুলো সরকার প্রধান আর পুলিশ থেকেও বেশি ক্ষমতাবান

বাংলাদেশের সব তরুন সমাজ,  শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আর বিশ্ববিদ্যালয়ের একসাথে জেগে উঠতে হবে – এসব বাস মালিকদের বিরুদ্ধে। ক্ষমতাসীনরাই যদি এসবের বিরুদ্ধে অ্যাকশন না নিতে পারে, তাহলে ভোটের বাজারে আসল মারটা খাবে জনগণের হাতে ।

Advertisements

Usage of Technology In Organization


When in a organization, management level top person cannot operate to do office mail, properly can’t check and open file, then they’re continues doing blame to the technical person. But, such type person never avowal or confession their fault that cannot operate notebook or email.

Technical person always wants that everyone can operate each technical product and OS, Application Software in the organization. But, sometimes, general people never understood that.

My Think tank told that arrange a shorts course for that top persons that can operate Windows OS, and different Electronic Mail (Email), Users friendly Microsoft Office Application.


BLACKOUT Bangladesh | Major policy changes needed to stop power failures


Improve planning and cut wasteful subsidies to increase funds to invest in improving power supplies and distribution. 

বিদ্যুত ছিল না সারা বাংলাদেশে।

মিডিয়া বলছে মন্ত্রীকে জিজ্ঞাসা করে তেমন কিছু জানা যায় নি। আচ্ছা তিনি কি ইন্জিনিয়ার?

বাস্তবিক বিষয়টা সম্পূর্ণ বিদ্যুৎপ্রকৌশল সম্পর্কিত, এটা নিয়ে রাজনীতি করা উচিৎ না.

বিষয়টা হল: ইন্ডিয়া থেকে আগত লাইনটিতে কোন ফল্ট হওয়ার কারনে হটাত করে হাই ভোল্টেজ চলে আসে। নিয়ম অনুযায়ী কোন লাইনে হাই ভোল্টেজ চলে এলে বাকি অংশ ত্রুটি মুক্ত রাখার জন্য ব্রেকার ট্রিপ (অটো বন্ধ) হয়ে যায় অর্থাত কানেশন ডিসকানেক্ট করে দেয়। ফলে যেটা হল হটাত করে ন্যাশনাল গ্রিডে ৫০০ মেগাওয়াটের ঘাটতি পড়ে গেল।

এখন লোড বেশি উতপাদন কম। যার ফলে অবশিষ্ট জেনারটরের উপর লোড(চাপ) বেশি পড়ল। ফলে ফ্রিকুয়েন্সি কমতে থাকে। অন্যদিকে ফ্রিকুয়েন্সি একটা নির্দিস্ট লেভেলের নিচে নেমে গেলে ওটাও ট্রিপ হয়ে যায়। ফলে যে কয়টা পাওয়ার প্লান্ট বাকি থাকে সেগুলো লোড ডিমান্ড এবং ফ্রিকুয়েন্স ঠিক রাখতে গিয়ে ট্রিপ করে যায়। একে একে সব পাওয়ার প্লান্ট বন্ধ হয়ে যায়।

এই গুলো নিয়ন্ত্রন করে NLDC( National Load Despatch Centre)
নরমাল অবস্থায় এরকম ঘাটতি পড়লে লোড শেডিং দিয়ে লোড ব্যলান্স করা হয়। ফলে ব্যালান্স থাকে। কিন্তু আজকের বিষয়গুলো খুব দ্রুত ঘটায় লোড কমানোর সময়ই পাওয়া যায়নি যার ফলে সব জেনারেশন বন্ধ হয়ে যায়।

নরমাল একটা প্লান্ট বন্ধ হলে চালু করে গ্রিডে দিতে ৪-৫ ঘন্টা সময় লাগে। আর স্টিম হলে প্রায় ১০-১২ ঘন্টা লেগে যায়। আশা করি বিষয়টা এখন অনেকের কাছেই ক্লিয়ার হবে… শুধু শুধু এর মধ্যে রাজনীতি করতে আসবেন না, করা ঠিকও না। দীর্ঘ ৭ বছর পর বাংলাদেশে এমন বড় ঘটনা ঘটলো। না বুঝে যারা দেশের পাওয়ার সাপ্লাই ও বিদ্যুৎ সিস্টেম ও দেশকে নিয়ে লাগামহীন নিয়ে আবোল তাবোল যা বলছেন, তা বলাটা নিছক পাগলদের দলে থাকা বুঝায়।

বাস্তবিক বিষয়টা সম্পূর্ণ বিদ্যুৎপ্রকৌশল সম্পর্কিত |


আমাদের ৫২’র ভাষা আন্দোলনের শহীদ মিনার


বাংলাদেশ আর বাঙালী জাতি যতদিন থাকবে, ততদিন আমাদের প্লারানের বাংলা ভাষা থাকবে, সেইভাবে থাকবে আমাদের ৫২’র ভাষা আন্দোলনের শহীদ মিনার।
আমরা আর আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম যেন ভাষা শহীদদের আত্মত্যাগের কথা ভুলে না যাই। আর আমাদের এই বাংলা ভাষার যেন উপযুক্ত প্রয়োগ যেন দেশের সর্বত্র হয়।

ভাষা শহীদ মিনারের বেদিতে খালি পায়ে গিয়ে পুস্প দিতে হবে, সেটাও যেন না ভুলে যাই। বর্তমানে দেখা যাচ্ছে – ভাষা দিবস ২১শে ফেব্রুয়ারি পালনটা নিছক আনন্দ আর গান বাজনার দিয়ে শুরু করাটা মারাত্মক ভুল। কারন, আআমদের বাংলা ভাষাকে প্রতিষ্ঠা করতে গিয়ে যারা শহীদ হয়েছে, সেই ভাষা শহীদের আত্মার মাগফেরাত কামনায় দোয়া মাহফিল আর আল্লাহ যেন তাদের জান্নাতবাসী করে সেই রকম দোয়া করতে দেখা যায় না বললেই চলে।

Shahid Minar Symbol of Language hero of 1952 Bangladesh.
We and Our future Generation Never forget the sacrificing value of life for Bengali Language Movement Hero of Bangladesh.


My Grandfather Sujayet Ulla, founder of Khalifarhat, Noakhali | আমার দাদা


আমার দাদা

My Grandfather and Khaliferhat, Sadar Area of Noakhali

My grandfather (dada) Late Late Suja Miah, who was the former Justice and British time, Bangladeshi Politician – Late Suja Miah ( Bengali – Dada). Someone indicates to him by honor as Suja Miah. Later, all people of Sadar Area, Khaliferhat allocation, knew him as Suja Miah. Grandfather (dada) Late Suja Miah was a famous Politician and the Founder and Owner of the KhaliferHat nearby Sadar of Noakhali District. was the owner of Khalifer Hat of The Noakhali region of Chittagong District.

From the history, on the last 1922, when british lord make obstacle and breaking the hat of Barahipur village, sadar, Noakhali. Later, a time this hat was auction in different time. But, the Khalifer hat of Barahipur not built properly. After a long years, then Suja Mia went to the Kolkata for met with Bengali lord of Kolkata that anyway get an  permission to build the hat of Barahipur village, Sadadr, Noakhali district.

Finally, that’s time Bengali Lord gave an permission to Suja Mia by a one taka gold coin with honor. Then Suja Mia started hard struggle to built the hat in a new movement. On 1930, He gave some land for build a mosque, madrasa under as a waqf estate. Then, Suja Mia and his cousin completely established a hat, name as KhaliferHat.


Celebrate Victory day of Bangladesh with my son


শত শহীদের রক্তের বিনিমিয়ে আমাদের বাংলাদেশ,
পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর সাথে রক্ত ঝরা যুদ্ধ, অনেক নাম না জানা মা বোনদের রক্তের বিনিময়ে আমাদের সবুজ বাংলাদেশ,
লাল সবুজের পতাকায় আছে অনেক ইতিহাস।

বিজয়ের শুভেচ্ছা

we celebrate the victory day of Bangladesh. good morning to our beautiful Bangladesh.

Never should be forgotten those unknown people, who lost their lives, all Martyrs, all freedom fighters of the liberation war of Bangladesh.
Thanks to Allah for get our Beautiful Bangladesh.


স্বৈরাচার পতন দিবস’ নিঃসন্দেহে একটা হাস্যকর


প্রতিবছর ৬ ডিসেম্বর এলে মহাসমারোহে ‘স্বৈরাচার পতন দিবস’ পালন করা হয়।

কিন্তু স্বৈরাচার পতন দিবস’ বিরাট এক পরিহাস।এরশাদ সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলনের প্রথম বলি হলেন জয়নাল, কাঞ্চন, মোজাম্মেল, জাফর ও দীপালি. এরশাদের সেনাশাসনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে গিয়ে সেই প্রথম রক্ত ঝরল ঢাকার রাজপথে। এরপরও অনেক তরুণের রক্ত ঝরেছে।
কিন্তু আজও এই তরুণদের ছবি নিয়ে শোভাযাত্রা হয় না।

প্রকৃত অর্থে মাননীয় সাবেক প্রেসিডেন্ট এরশাদ সরকারের আমলে যে উন্নয়নের জোয়ার শুরু হয়, আর যত রাস্তা, সেতু, রেল যোগাযোগের উন্নয়ন হয়, মসজিদ, মাদ্রাসা তৈরি হয়, বাঙালী জাতির মনে রাখা উচিত, ইতিহাস দেখা উচিত।

এমনকি আজ আমরা যেসব রাস্তায় চলাচল করে থাকি সবই মাননীয় সাবেক প্রেসিডেন্ট এরশাদ সরকারের সময়ে তৈরি হয়। বাংলাদেশ রক্তের সিঁড়ি বেয়ে গণতন্ত্রের ঝান্ডা হাতে যাঁরা ১৯৯১ সাল থেকে এ দেশ শাসন করে যাচ্ছেন, তাঁরা এই তরুণদের কজনের নামে কয়টি রাস্তা, সেতু বা ভবনের নামকরণ করেছেন ?

অকৃতজ্ঞ এই দেশ, অকৃতজ্ঞ এই সমাজ !!!
তাই এই ‘স্বৈরাচার পতন দিবস’ নিঃসন্দেহে একটা হাস্যকর।


My Grand father [Nana]


My Grand father’s Death Anniversary

On the last 11th October, 2005, It was an unfortunate & bad moments, that I was lost a special one person who is my Nana Alhaj M. Siddique Ullah…..( Former Deputy Governor of Central Bank of Bangladesh – Bangladesh Bank).

Always I still remembered to him & felt his all activities. It is memorable day that my Grandfather NANA always gave me unlimited intellectual advice as well as very straight forward. On the last 11th October, 2005, during midnight, he died by BRAIN stroke.

I remembered him more.
When I wrote this article, then tears came out from my eyes.

He was one icon as well as special important person in my life. If he will still alive, then will get more advanced opportunity as well as felt happy to see my major success.

When I was born, need more O – blood. On those days, not available blood bank in Dhaka. Then my Grandfather (NANA) was trying to manage this (O -). O Negative blood and save my life. Thanks to Allaah and that person who gave me O Negative blood.

I felt him and search him through all of his Gifts.

Allaah Blessed him into Zannah