Brand Name || Official Url :: Software UI Designer | Contents Designer | W€B Programmer | Programmer | Computing Technology ::

ArT of My Voices ArTICLEs ::

Dirty and Dust Carrier Bus of the City Gazipur located Bangladesh


People and friends can tell that why publishing this picture.

It’s a model frame of Digital Development of a City.

Uncountable billboard of the people and candidates of the political party. This political party representative person always trying to show down their face development, but fail to show and focus the development of the City Gazipur.

Everywhere so much dust, overflow drainage water, damage road everywhere into Gazipur city. But, the current political party AL of Bangladesh always shouted that they make a development nice city.

But, the current ruling party’s major leaders failure to buy some new garbage recycling system truck for bear city’s dust.

Dirty and Dust Carrier truck run on the road, but all of those carrier truck back side fully open that always flew more dirty things as well as fall many dust on the road, beside spreading most dirty smell, which is harmful for the people.

Advertisements

Allaah always for all


Allaah always for all….

The mind is blowing…..
A runner, dreamer sometimes lost the way, but never lost the Hope..
Because, Hopes make you alive, though many problems and upset in mind.

Exactly, I’m staying alive in this ‘Hope’ and base on this Hope.


Road Safety and Modern Bangladesh – নিরাপদ সড়ক আর আধুনিক বাংলাদেশ


একটি বাংলাদেশ যখন পাকিস্তানের হানাদার বাহিনীর সাথে রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ করে স্বাধীন রাষ্ট্র গঠন করে আগামীর প্রতিটা শিশু থেকে তরুন- তরুণী যেন তাঁদের মৌলিক অধিকার নিয়ে শান্তিতে বাস করতে পারে, একটি সুন্দর ভবিষ্যৎ জীবন পায়। আর এই বাংলাদেশ রাষ্ট্র গঠনে বাংলাদেশের প্রতিটা মানুষের অবদান আছে, একমাত্র জামায়াত নামের সাচ্চা রাজাকার দলটি বাদে।

কিন্তু, যে জন্য বাংলাদেশ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা হয়েছে, সেই রাষ্ট্রের মানুষকে কিছু দলকানা ব্যক্তি রাষ্ট্রকে আর রাষ্ট্রের সাধারন মানুষ, ছাত্র জনতাকে ২টি দলে ভাগ করে ফেলেছে। কিন্তু, আক্ষরিক অর্থে একটি দলকে সমর্থন না দিলেই যে রাষ্ট্রের ছাত্র জনতা, জনগণকে কখনো রাষ্ট্র বিরোধী, বা স্বাধীনতাবিরোধী বলা যায় না। আবার জনগণ তথা ছাত্রসমাজ যখন রাষ্ট্রের কাছে তাঁদের মৌলিক অধিকার নিয়ে ভালোভাবে বাঁচতে চাওয়ার জন্য সোচ্চার হয়ে আন্দোলন করলেই রাজাকার, দেশদ্রোহী বলা যায় না।

সমস্যা এখানে, একটি বিশেষ দল রাষ্ট্রের মানুষ যখন মৌলিক অধিকারের জন্য রাস্তায় নেমে তাঁদের সামান্য দাবি প্রকাশ করছে, সেই সাধারন ছাত্রসমাজের উপর তারা হামলা করে, নির্মমভাবে আঘাত করে, আর শেষে বিএনপি, জামাত, শিবিরের মুখপাত্র বানিয়ে প্রচার করেছে। কিন্তু এই সাধারন ছাত্র সমাজ, নির্বিশেষে জনগণ চেয়েছে – “ নিরাপদ সড়ক ”, সড়কে হত্যার বদলে সাধারন মৃত্যুর গ্যারান্টি।

চায় নাই – সরকারের পদত্যাগ দাবী করেনি! স্বর্ন তামা হওয়া নিয়ে কথা বলেনি! প্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারা নিয়েও কথা বলে নাই, ১লক্ষ ৪০ টন কয়লা গায়েবের হিসাব চায়নি! কোঁটা সংস্করণ চায় নাই, বাস ভাড়া কমানোর দাবি করেনি! বাংলাদেশ থেকে ৭৬ লক্ষ কোটি টাকা কোথায় পাচার হয়েছে সেই প্রশ্ন করিনি!

সাধারন ছাত্র সমাজ, নির্বিশেষে জনগণ চেয়েছে – “ নিরাপদ সড়ক ”, একটি সুন্দর রাষ্ট্র, ভালোভাবে বেঁচে থাকার অধিকার।

আর তাই বলব – দলকানা না হয়ে দেশকানা হয়ে উঠুন।

একজন শেখ মুজিবুর রহমান না থাকলে, আজ এই বাংলাদেশ রাষ্ট্র গঠন হতো না, আর পৃথিবীর মানচিত্রে আত্মপ্রকাশ হয়তো হতো না।

নেতা হওয়া ছারটিখানি কথা নয়, কারন তার মত আদর্শ নেতাই অনেক ত্যাগ আর নিপীড়নের মাঝে এদেশের মানুষকে স্বপ্ন দেখিয়েছিল একটি বাংলা রাষ্ট্র গঠনে, যেখানে একটি স্বাধীন জাতি হিসাবে, পরিশেষে সব শ্রেণীর বাঙালিরা স্বাধীনভাবে মতামত প্রকাশ করতে পারে। আর সেজন্য, সব মানুষকে এক কাতারে নিয়ে এসে জাগ্রত করে, সঠিকভাবে নির্দেশনা দিয়ে যায়, কিভাবে স্বাধীনতা অর্জন করতে হয়, একটি সুন্দর রাষ্ট্র গঠন করা যায়।


Personal Review on different Transport Apps In Bangladesh


Basically, I dislike to use Motorbike for moving to different places. An accident can happen on the busy road anytime by using Motorbike.

Now many riders mobile apps. driver offering to the public for use ride share by switch off the mobile apps.

But, for the safety of Life, people must deny or ignore this type of offer. Always using ride sharing apps, if you’re using apps OBHAI, shohoz Rides, Pathao motorbike or uber cars for your daily transport.


Bangladesh and Recent Traffic System | বাংলাদেশ আর ট্রাফিক জ্যাম


১।

এমনই এক শহরে আমরা বাস করি, যেখানে প্রকৃতির সবুজ আর গাছের সবুজ পাতার দেখা পাওয়া দিন দিন কঠিন হয়ে যাচ্ছে।

প্রতিদিনের জ্যাম আর যানজটে আমরা চরম বিরক্ত, তারপরও আমরা নির্বাক নীরব জাতি। আর এমন বিরক্তিকর যানজট পার হয়ে বাসায় সুস্থভাবে আসতে পারাটা বড় সৌভাগ্যের বিষয়। কারন, বর্তমান সময়ে যে পরিমান যানজট হচ্ছে, তাতে যে কেউ অসুস্থ হয়ে যাওয়াটা স্বাভাবিক।
আবার, বলা হচ্ছে – ঢাকার এয়ারপোর্ট থেকে কমলাপুর পর্যন্ত আর উত্তরার দিয়াবাড়ি থেকে ঢাকার আগারগাঁও পর্যন্ত ১১ দশমিক ৭ কিলোমিটার জুড়ে পাতাল মেট্রোরেল নির্মিত হবে। তার মানে – আগামীতে ঢাকা বাসীকে আবার নতুন করে যানজটের সাথে হাত মিলেয়ে চলতে হবে।

এভাবেই, বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকাবাসীর সময় নষ্ট করছে, সাথে শ্রম, অর্থ ২ – ই ।

২।

বাংলাদেশ এমন একটা দেশ – যে দেশে বাসে চলন্ত অবস্থায় যাত্রী উঠানামা করানো হয়ে থাকে, তার উপর যত্রতত্র জায়গায় বাস থামিয়ে যাত্রী উঠানামা করানো হয়। আর বাস কোম্পানিগুলোর উপর সরকারের নাই কোন জবাবদিহিতা আর নিয়ন্ত্রন । আবার, নিয়ম নীতি না মেনে প্রধান সড়ক আর হইওয়ে রাস্তায় প্রতিযোগিতা মুলক ভাবে বাস চালায়, যার ফলে এই পর্যন্ত অনেক যাত্রী আর পথচারীর প্রান চলে গেছে ।

আবার সরকারের এক শ্রেণীর আমলা আর শ্রমিক সমিতির প্রধান নেতা এভাবে বেপোরায় গতিতে বাস চালানোর দায়ে যাত্রীর মৃত্যু ঘটলেও ফাঁসির বিধান না রাখার সুপারিশে আজকের বাংলাদেশে বাস সমিতি, বাস মালিক আর শেষে চালকরা প্রশ্রয়ে পেয়ে গেছে যত্রতত্র জায়গায় বাস থামিয়ে যাত্রী উঠানামা করানো, পাশাপাশি ঠাণ্ডা মাথায় পথচারী আর যাত্রী খুন করছে।

আর তারই ফল – আজকের নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সাইদুর রহমানের অকাল মৃত্যু । সাইদুর দৌড়ে এসে বাসে উঠতে গিয়ে নাকেমুখে আঘাত পান। রক্ত বের হতে থাকে। আহত যাত্রীকে চিকিৎসা দেওয়ার বদলে হানিফ এন্টারপ্রাইজের বাসটির চালক, সুপারভাইজার ও চালকের সহকারী মিলে একটি সেতু থেকে নদীতে ফেলে দেন।

আমরা জানি – এই হত্যার বিচার করতে পারবে না সরকার আর পুলিশ প্রশাসন। কারন আমাদের দেশের বাস মালিক কোম্পানিগুলো সরকার প্রধান আর পুলিশ থেকেও বেশি ক্ষমতাবান, তাদের অর্থের জোরও বেশি।

এমনকি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রানলয়ের প্রধানের ক্ষমতা নেই – এই বাস কোম্পানির বাসচালক, চালকের সহকারী ও সুপারভাইজারকে ফাঁসিতে ঝুলাতে।

৩।

এখন রাজনৈতিক বা অন্য প্রভাব খাটিয়ে ঢাকায় একটার পর একটা বাস কোম্পানি তৈরি হচ্ছে। বাসমালিকেরা আত্মীয়-পরিজন যাকে পাচ্ছে, তাকেই স্টিয়ারিংয়ে বসিয়ে দিচ্ছেন। এসব চালকের বেশির ভাগই নেশাগ্রস্ত। কেউ কেউ তো গাড়ি চলন্ত অবস্থায়ও গাঁজা খাচ্ছে।
— ঢাকা-রাজশাহী পথে ৩০ বছর ধরে দূরপাল্লার বাস চালক – জাহাঙ্গীর আলম

আর কত তাজা প্রান ঝরাতে পারলে বাস – মালিকদের আত্মা পরিশোধিত হবে। আর এক মন্ত্রনালয়ের প্রধান বলেছে – ভারতেও এ ধরণের দুর্ঘটনা হয় কিন্তু কেউ এ নিয়ে এতো উচ্চবাচ্য করেনা …..
বাংলাদেশ ভারতের পা চাঁটা গোলাম হয়ে গেছে । ভারত ছাড়া চলতে পারে না।

আমরা জানি – এই পর্যন্ত বাস চালদের দ্বারা এসব পরিকল্পিত হত্যার বিচার করতে পারবে না সরকার আর পুলিশ প্রশাসন। কারন আমাদের দেশের বাস মালিক কোম্পানিগুলো সরকার প্রধান আর পুলিশ থেকেও বেশি ক্ষমতাবান

বাংলাদেশের সব তরুন সমাজ,  শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আর বিশ্ববিদ্যালয়ের একসাথে জেগে উঠতে হবে – এসব বাস মালিকদের বিরুদ্ধে। ক্ষমতাসীনরাই যদি এসবের বিরুদ্ধে অ্যাকশন না নিতে পারে, তাহলে ভোটের বাজারে আসল মারটা খাবে জনগণের হাতে ।


Usage of Technology In Organization


When in a organization, management level top person cannot operate to do office mail, properly can’t check and open file, then they’re continues doing blame to the technical person. But, such type person never avowal or confession their fault that cannot operate notebook or email.

Technical person always wants that everyone can operate each technical product and OS, Application Software in the organization. But, sometimes, general people never understood that.

My Think tank told that arrange a shorts course for that top persons that can operate Windows OS, and different Electronic Mail (Email), Users friendly Microsoft Office Application.


BLACKOUT Bangladesh | Major policy changes needed to stop power failures


Improve planning and cut wasteful subsidies to increase funds to invest in improving power supplies and distribution. 

বিদ্যুত ছিল না সারা বাংলাদেশে।

মিডিয়া বলছে মন্ত্রীকে জিজ্ঞাসা করে তেমন কিছু জানা যায় নি। আচ্ছা তিনি কি ইন্জিনিয়ার?

বাস্তবিক বিষয়টা সম্পূর্ণ বিদ্যুৎপ্রকৌশল সম্পর্কিত, এটা নিয়ে রাজনীতি করা উচিৎ না.

বিষয়টা হল: ইন্ডিয়া থেকে আগত লাইনটিতে কোন ফল্ট হওয়ার কারনে হটাত করে হাই ভোল্টেজ চলে আসে। নিয়ম অনুযায়ী কোন লাইনে হাই ভোল্টেজ চলে এলে বাকি অংশ ত্রুটি মুক্ত রাখার জন্য ব্রেকার ট্রিপ (অটো বন্ধ) হয়ে যায় অর্থাত কানেশন ডিসকানেক্ট করে দেয়। ফলে যেটা হল হটাত করে ন্যাশনাল গ্রিডে ৫০০ মেগাওয়াটের ঘাটতি পড়ে গেল।

এখন লোড বেশি উতপাদন কম। যার ফলে অবশিষ্ট জেনারটরের উপর লোড(চাপ) বেশি পড়ল। ফলে ফ্রিকুয়েন্সি কমতে থাকে। অন্যদিকে ফ্রিকুয়েন্সি একটা নির্দিস্ট লেভেলের নিচে নেমে গেলে ওটাও ট্রিপ হয়ে যায়। ফলে যে কয়টা পাওয়ার প্লান্ট বাকি থাকে সেগুলো লোড ডিমান্ড এবং ফ্রিকুয়েন্স ঠিক রাখতে গিয়ে ট্রিপ করে যায়। একে একে সব পাওয়ার প্লান্ট বন্ধ হয়ে যায়।

এই গুলো নিয়ন্ত্রন করে NLDC( National Load Despatch Centre)
নরমাল অবস্থায় এরকম ঘাটতি পড়লে লোড শেডিং দিয়ে লোড ব্যলান্স করা হয়। ফলে ব্যালান্স থাকে। কিন্তু আজকের বিষয়গুলো খুব দ্রুত ঘটায় লোড কমানোর সময়ই পাওয়া যায়নি যার ফলে সব জেনারেশন বন্ধ হয়ে যায়।

নরমাল একটা প্লান্ট বন্ধ হলে চালু করে গ্রিডে দিতে ৪-৫ ঘন্টা সময় লাগে। আর স্টিম হলে প্রায় ১০-১২ ঘন্টা লেগে যায়। আশা করি বিষয়টা এখন অনেকের কাছেই ক্লিয়ার হবে… শুধু শুধু এর মধ্যে রাজনীতি করতে আসবেন না, করা ঠিকও না। দীর্ঘ ৭ বছর পর বাংলাদেশে এমন বড় ঘটনা ঘটলো। না বুঝে যারা দেশের পাওয়ার সাপ্লাই ও বিদ্যুৎ সিস্টেম ও দেশকে নিয়ে লাগামহীন নিয়ে আবোল তাবোল যা বলছেন, তা বলাটা নিছক পাগলদের দলে থাকা বুঝায়।

বাস্তবিক বিষয়টা সম্পূর্ণ বিদ্যুৎপ্রকৌশল সম্পর্কিত |


আমাদের ৫২’র ভাষা আন্দোলনের শহীদ মিনার


বাংলাদেশ আর বাঙালী জাতি যতদিন থাকবে, ততদিন আমাদের প্লারানের বাংলা ভাষা থাকবে, সেইভাবে থাকবে আমাদের ৫২’র ভাষা আন্দোলনের শহীদ মিনার।
আমরা আর আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম যেন ভাষা শহীদদের আত্মত্যাগের কথা ভুলে না যাই। আর আমাদের এই বাংলা ভাষার যেন উপযুক্ত প্রয়োগ যেন দেশের সর্বত্র হয়।

ভাষা শহীদ মিনারের বেদিতে খালি পায়ে গিয়ে পুস্প দিতে হবে, সেটাও যেন না ভুলে যাই। বর্তমানে দেখা যাচ্ছে – ভাষা দিবস ২১শে ফেব্রুয়ারি পালনটা নিছক আনন্দ আর গান বাজনার দিয়ে শুরু করাটা মারাত্মক ভুল। কারন, আআমদের বাংলা ভাষাকে প্রতিষ্ঠা করতে গিয়ে যারা শহীদ হয়েছে, সেই ভাষা শহীদের আত্মার মাগফেরাত কামনায় দোয়া মাহফিল আর আল্লাহ যেন তাদের জান্নাতবাসী করে সেই রকম দোয়া করতে দেখা যায় না বললেই চলে।

Shahid Minar Symbol of Language hero of 1952 Bangladesh.
We and Our future Generation Never forget the sacrificing value of life for Bengali Language Movement Hero of Bangladesh.