A Brand Name ||Official Url :: Software UI Designer| Contents Designer | OS | W€B | Server | Programming | Computing Technology ::

একটি ছেলে ও তার রঙ্গিন চশমা |

আজ থেকে অনেক বছর খানেক আগের কথা…।

একটা ছেলে, তরুন টগবগে আবেগে কলেজ জীবন শেষ করে ইউনিভার্সিটি জীবনে পা দেয়, নুতুন জীবন, সব কিছু অন্য রকম, সে সবার সাথে সে মিশতে পারে, কোন ভেদাভেদ ছিল না।

কিন্তু হঠাৎ কোথায় থেকে একটা মেয়ে এসে, ছেলেটার জগৎটা অনেকটা অলট পালট করে দেয় অনেক কিছুর মাঝে,

কিন্তু ছেলেটি আজ অনেক শক্ত, বাওস্তবাতার নিরিখে সে আজ এতো টাই শক্ত সেই ধাক্কার পর, যেমন শক্ত একটা পাথর হয়ে গেছে তাঁর মন। ছেলেটি প্রথম থেকেই কন জানি মেয়ে দের থেকে দূরে থাকতো, কিন্তু একই বিশ্ববিদ্যালয়ের একটা মেয়ে প্রায়ই তাকে মোবাইলে ফোন দিয়ে অনেক কথা বলতো, ছেলেটি প্রথম অনেক মাস পাত্তাই দিত না, কিন্তু মেয়ে টা অনেক টা নাছোড়বান্দা, প্রায় রাতে ফোন দিত।

ছেলেটা একদিন বলে উঠে – কেন এতো ফোন, কেন এতো কথা, কেন ??

মেয়ে টা কোন উত্তর দেয় না, শুধু বলে দেয় “ দিবো – আমার ইচ্ছে ” একদিন ছেলে টা ফোন আর ধরে না, কিন্তু মেয়ে টা অনেক ফোন দেয়, অনেক টেক্সট মেসেজ দেয়, এর পর প্রায় ৪ দিন পর ফোন ধরে, মেয়ে টা কান্না বিজড়িত কণ্ঠে বলে উঠে কেন ফোন দরে নাই, ছেলে টা বলে সেই উত্তর – তার ইচ্ছে, মেয়ে টা তখন বলে সে তাকে অনেক মিস করেছে, অনেক অনেক পছন্দ করে, বাকি টা ভুজে নিতে। ছেলে টা বলে যে – কেন পছন্দ করে, কি আছে তার (ছেলে) মাঝে। মেয়ে টা ফোন রাখার আগে আবার ও বলে – সে তাকে ভালোবাসে। এর পর অনেক দিন নিশ্চুপ ২ জনই।

ছেলে টা ভেবে পায় না কি করবে, কিন্তু মনে মনে সে খুব আনন্দিত, প্রথম ভালবাসা। কিন্তু মেয়েটা কে ফোন দিতে ভয় পাচ্ছে, হঠাৎ মেয়েটাই ফোন দেয়, ব্যাস তাদের অন্য রকম গল্প শুরু হয়ে গেলো, এরপরের মাঝের গল্প আর নাই বললাম, অনেক ভালো দিন যাচ্ছিল…

কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয় শেষ করার কিছু দিনের মধ্যে ছেলেটা যখন বাহিরে যেতে চায়, মেয়েটা কে নিয়ে যেতে যায়।

ছেলেটা ততদিনে মেয়ে টা কে অনেক ভালবেসে ফেলেছে, মেয়ে টা কে সে অনেক বিশ্বাস করত।

নিয়তির নিষ্ঠুর পরিহাস – তখনই দেখা যায় – অন্য রকম সমস্যা, কিন্তু মেয়েটা-ই চাইতো – ছেলে টা যেন বাহিরে যায়, পরে তাকেও যেন নিয়ে যায়।   

ছেলে টাও তাও মানে, মেয়েটার জন্য সে অনেক কিছুই প্রস্তুত করে বাহিরে যাবার জন্য, ও যাবার আগে কিছু করতে চেয়েছিল ।  

কিন্তু হঠাৎ ছেলেটা বাহিরে যাবার বেশ এক মাস আগে, মেয়েটা ছেলেটা-কে ফোন দিয়ে বলে – “ সম্ভব না, তাকে যেন ভুলে যায়, আরও বলে তার সাথে যা করেছে, সে তার এক বান্ধবীর সাথে চ্যালেঞ্জ করে এমন করে, ছেল টার সাথে একটা গেইম খেলেছে, অভিনয় করেছে কিন্তু বাস্তবে ছেলে টা কে একদম ভালোবাসে না।

ছেলেটা প্রথম ভাবে – মেয়ে টা নিছক মজা করছে, কিন্তু মেয়ে টা আবারও যখন খুব শক্ত করে বলে – খবরদার একদম আগাবে না, আমি তোমাকে ব্যবহার করেছি, তোমার সাথে অভিনয় করেছি, এক পা এগোলে – পুলিশ রিপোর্ট করবে। ছেলে টা ভেবে পায় না কি করবে, অনেক চেষ্টা করে, বুঝায়, কিন্তু সব এক এর পর এক বিফলে যায়,

ছেলে টা কি করে জানো তোমরা –

মনে অনেক জমা দুঃখ-কষ্ঠ, তীব্র বেদনা নিয়ে – সে চলে যায় দূর দেশে, বিমানে উঠার আগে মেয়েকে একটা টেক্সট মেসেজ দিয়ে যায় –

“ এটাই তার শেষ টেক্সট মেসেজ, আর কোন দিন টেক্সট মেসেজ তো দুরের কথা, ফোনও দিবে না, সে বিশ্বাস করে ভুল করেছে, মেয়েদের উপর ছেলেটার অনেক ঘৃণা জমে গেছে, আর ভালোবাসার প্রতি তার আর বিন্দু মাত্র বিশ্বাস নেই, তার মন টা ভেঙ্গে অন্য রকম করে দিয়েছে ”  

ছেলে টা এয়ারপোর্ট এ বোর্ডিং পাস করে,

একটা সময় বোয়িং এ উঠে বসে রাত ১টায়, বাবার সাথে কিছুক্ষন কথা বলে, কিন্তু তার বাবা সব জানতো, তাকে অনেক অনেক বেশী সাহস দেয়, ঠিক সেই সময় প্লেন ধীরে ধীরে দ্রুত গতিতে চলতে থাকে, একটা সময় সব আকাশে মিশে যায়। দীর্ঘ সময় পর ছেলে টা দেশে আসে…।

দুনিয়া তে কোন মানুষই পরিপুরুক না,

তারপরও আজ সে অনেকটাই পরিপূরক মনে করে, সে অনেক শক্ত পাথরের মতো, ভালোবাসা তাকে স্পর্শ করলেও এতোটা নাড়া দেয় না।

তার আজ অনেক বন্ধু, অনেক রকম লোকের সাথে, অনেক হাই ক্লাসিক লোকের সাথে চলা ফেরা, তার জীবন টা অন্য রকম হয়ে গেছে একদম।

পরিবার, সমাজে তার আজ কিছুটা হলেও সেই রকম স্ট্যাটাস, নাম, কিন্তু তার চোখে রঙ্গিন চশমার আড়ালে সে তার দুঃখ গুলো লুকিয়ে রেখে চলছে,

সবার সাথেই হাসি মুখে, কেউ জানে না না, কাউকে বুঝতে দেয় না তার মনের ব্জমা ব্যাথা, রাতের আধারে অনেক টা সে কষ্ট পায়, কিন্তু সকালে সে আবার রঙ্গিন ফুলের মতো ঝকঝকে অনেক শক্ত, সজিব হয়ে যায় ।

আরও উচ্চ শিক্ষা গ্রহন করার জন্য সে তার গাড়ি ক্লান্তি হিন ভাবে চালাচ্ছে, যুদ্ধ করে চলছে, যেন ভবিষ্যতে এমন একজন মানুষ হয়, যেন কেউ তাকে কখনো ফিরিয়ে না দিতে পারে। কিন্তু এটা সত্যি যে সত্তিকারের মনের বন্ধু আজও সে পায় নাই আর ভালবাসা বলে কিছু নাই এই পৃথিবীতে সে আজও ভাবে, হয়তো কেউ কোন দিন তার সেই ভুল ভাঙবে, স্রস্টার সৃষ্টি পবিত্র ভালবাসা ।

আর না ভাঙলেও তার মনে কোন কষ্ট নেই…… কারন তার কষ্টগুলো সাদা, তাই দেখা যায় না…

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s